মাত্র ৪০ মিনিটেই সাকলায়েন মুশতাকের হৃদয় জিতে নিয়েছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী। প্রায় ১৫ বছর আগের একটি ঘটনা উল্লেখ করে এক অন্য সৌরভকে তুলে ধরলেন পাকিস্তানের সাবেক অফস্পিনার।

একসময় দুজন একে অপরের বিপক্ষে খেলেছেন। অফস্পিনের ঘূর্ণি জালে সৌরভকে পরাভূত করার চেষ্টা করতেন সাকলায়েন। ভারতের সাবেক অধিনায়কও জোরেশোরে পাক স্পিনারকে গ্যালারিতে ছুড়ে ফেলার চেষ্টা করতেন। কিন্তু ব্যক্তিগত সম্পর্কটা তাদের খুবই মধুর!

সাকলায়েনের কথাতেই এর প্রমাণ পাওয়া গেল। সৌরভ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২০০৫-০৬ সালে ইংল্যান্ড সফরে খেলতে গিয়েছিল ভারত। তখন আমি সাসেক্সের হয়ে খেলতাম।

ওই সময় সাসেক্সের বিপক্ষে তিন দিনের একটা প্রস্তুতি ম্যাচ ছিল টিম ইন্ডিয়ার। সেই ম্যাচে খেলেননি সৌরভ। তখন দুঃসময় কাটিয়ে মাঠে ফেরার চেষ্টা করছিলেন সাকলায়েন।

ইউটিউবে সাবেক পাক স্পিনার বলেন, দুটি হাঁটুতেই আমার অস্ত্রোপচার হয়েছিল। ৩৬-৩৭ সপ্তাহ আমি শয্যাশায়ী ছিলাম। মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলাম।

ভারতের বিপক্ষে সাসেক্সের সেই ম্যাচ প্রসঙ্গে সাকলায়েন বলেন, সৌরভ ওই ম্যাচটায় খেলেনি। খেলা দেখতে এসেছিল। সাসেক্স ব্যাট করার সময়ে ব্যালকনি থেকে সে আমাকে দেখতে পেয়েছিল। তবে আমি তাকে খেয়াল করিনি।

সাকলায়েনকে দেখে সাসেক্সের ড্রেসিংরুমে যান দাদা। পুরনো স্মৃতি হাতড়ে দুসরার জনক বলেন, আমাদের ড্রেসিংরুমে এসে সৌরভ আমার হাঁটুর খোঁজখবর নেয়। আমার পরিবার কেমন আছে জানতে চায়। এর পর আমরা প্রায় ৪০ মিনিট কথা বলি।

ওই ৪০ মিনিটের কথাবার্তায় সাকলায়েনের মন জিতে নিয়েছিলেন সৌরভ। তার মন থেকে দূর হয়ে গিয়েছিল সব বিষণ্ণতা।

মহারাজ এখন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) প্রেসিডেন্ট। সাকলায়েন বলেন, অধিনায়ক হিসেবে দারুণ নেতৃত্ব দিয়েছে সৌরভ। বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসেবে ভারতীয় ক্রিকেটকে একইভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে সে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here