নির্বাচন কমিশনের (ইসি) জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর বলেছেন,যেসব শিক্ষার্থী আন্দোলন করছে, তারা বয়সে নবীন। তাদের কেউ হয়তো বুঝে কেউ না বুঝে আ’ন্দোলন করছে। আমার ধারণা, একটু পরই বুঝে যাবে যে, এটা আসলে করা ঠিক হচ্ছে না।বুধবার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় ইসির এক অভ্যন্তরীণ বৈঠক শেষে তিনি এ কথা বলেন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দা’বিতে দুদিন ধরে রাজধানীর শাহবাগে আ’ন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। ৩০ জানুয়ারি এ দুই সিটির ভোটের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। একই দিন সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্ব’তী পূ’জা অনুষ্ঠিত হবে।ইসি সচিব বলেন, ‘কমিশন আগেই বলেছে, ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ২৯ তারিখ সরস্বতী পূজা। ৩০ তারিখে পূজা নেই।

১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি পরীক্ষা। মাঝে সময় একদিনই ৩০ তারিখ, যেদিন নির্বাচন করা যায়। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা উচ্চ আদালতে রিট করেছিল, সেটি খা’রিজ হয়ে গেছে। কারণ তারা যে যুক্তি উপস্থাপন করেছে, তা তারা প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। আদালত নির্বাচনের নির্ধারিত তারিখটি যুক্তযুক্ত মনে করেছেন, তাই রিটটি খারিজ করে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘তারা বলেছিলেন, আপিল করবেন। কিছুক্ষণ আগে খোঁজ নিয়েছি, এখন পর্যন্ত কোনো আপিল করা হয়নি। যেহেতু আপিল হয়নি আর আপিল বিভাগ থেকে কোনো নির্দেশনাও আসেনি। তাই নির্বাচন কমিশন ৩০ জানুয়ারিই নির্বাচন করবে।নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আন্দোলন শুরু হয়েছে। এতে নির্বাচনে কোনো প্রভাবে পড়বে কি-না এমন প্রশ্নে আলমগীর বলেন, ‘নির্বাচনে প্রভাব পড়ার কথা নয়। কয়েক দিনের মধ্যে তারা বুঝে যাবে, তাদের আন্দোলন করা ঠিক হচ্ছে না। এটা হয়তো বা তারা না বুঝেই করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here